মিস ওয়ার্ল্ড১৭ হলেন ভারতের মানুষী ছিল্লর | ইবিডি নিউজ
বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৯পরীক্ষা মূলক

মিস ওয়ার্ল্ড১৭ হলেন ভারতের মানুষী ছিল্লর

মিস ওয়ার্ল্ড২০১৭ হলেন হরিয়ানার মানুষী ছিল্লর। ভারতীয় হিসেবে ষষ্ঠতম মিস ওয়ার্ল্ড তিনি। ১০৮টি দেশকে পেছনে ফেলে সেরার মুকুট উঠল তাঁর মাথায়।

এর আগে ২০০০ সালে বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া মিস ওয়ার্ল্ড হয়েছিলেন। ১৭ বছর পর আবার কোনও ভারতীয়র মাথায় বিশ্বসেরার শিরোপা উঠল।

এর আগে ফেমিনা মিস ইন্ডিয়া হয়েছিলেন মানুষী। এবার বিশ্বসেরার শিরোপা পেয়ে আপ্লুত। চলতি বছরের মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছে মেক্সিকো, তৃতীয় ইংল্যান্ড।

প্রতিযোগিতার শেষ প্রশ্নে বাজিমাত করেন মানুষী। তাঁকে বিচারকরা প্রশ্ন করেন, বিশ্বের মধ্যে কোন পেশায় সবচেয়ে বেশি বেতন পাওয়া উচিত বলে আপনি মনে করেন। উত্তরে মানুষী বলেন, “আমি মায়ের কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি প্রেরণা পেয়েছি। আমার মতে, মায়ের কাজ কোনও দিনই টাকা দিয়ে মাপা যায় না। মাপতে হয় ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা দিয়ে। তাই মায়েরাই সবচেয়ে বেশি পাওয়ার যোগ্য।”

তাঁর উত্তরে অভিভূত হন বিচারকরা। সেরার মুকুট ওঠে ভারতীয় মাথায়।

মানুষী ছিল্লর

১৯৯৭ সালের ১৪ মে হরিয়ানায় এক চিকিৎসক পরিবারে জন্ম মিস ওয়ার্ল্ড মানুষী ছিল্লরের। বাবা-মা দু’জনেই চিকিৎসক।

বাবা মিত্র বসু ছিল্লর ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশনের এক বিজ্ঞানী। আর মা নীলম ছিল্লর ইনস্টিটিউট অব হিউম্যান বিহেভিয়র অ্যান্ড অ্যালাইড সায়েন্সের সহকারী অধ্যাপক। বাবা-মাকে দেখে ছোট থেকেই তাঁর ইচ্ছে ছিল বড় হয়ে চিকিৎসক হবেন। তখন থেকেই পড়ার বইয়ে মুখ গুজে থাকতেন এই মেয়ে। আর বাকি পাঁচটা মেয়ের মতো পড়াশোনাটাই ছিল তাঁর ধ্যান-জ্ঞান।
পরে গোটা পরিবার হরিয়ানা থেকে চলে আসেন উত্তর দিল্লিতে। মানুষী ভর্তি হন দিল্লির সেন্ট থমাস স্কুলে। দ্বাদশ শ্রেণিতে খুব ভাল ফলাফল করে সোনিপাতের ভগতফুল সিংহ সরকারি কলেজ ও হাসপাতালে (মহিলা) ডাক্তারি নিয়ে ভর্তি হন। পড়াশোনার পাশাপাশি বিখ্যাত নৃত্যশিল্পী রাজা রেড্ডি, রাধা রেড্ডি এবং কৌশল্যা রেড্ডির কাছে তাঁর তালিম চলছিল কুচিপুড়ী নৃত্যশৈলীরও।

এমনকি ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামার ছাত্রী তিনি। পড়াশোনা, পরিবার, বন্ধুবান্ধব, নাচ আর নাটক এই নিয়ে জীবনটা একই খাতে বইছিল মানুষীর। তবে সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় এক বার অংশ নেওয়ার একটা সুপ্ত বাসনা ছিল মনের কোণায়। সে কথাটা মা-বাবাকে একদিন বলেও ফেলেন। মেয়েকে উৎসাহ দিতে কোনও কসুর করেননি তাঁরা।
সে সময় চণ্ডীগঢ়ে ছিলেন মানুষী। তিনি একটি সৌন্দর্য প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হওয়ার খবর পান। আর দেরি করেননি। নাম নথিভুক্ত করে ফেলেন সেই প্রতিযোগিতায়।

সেই শুরু জীবনটাকে এক্কেবারে অন্য ভাবে দেখা। সেই থেকে বিশ্বের সেরা সুন্দরীর মঞ্চে সেরার তকমা আদায় করার জন্য শুরু কঠিন অধ্যাবসায়। যে সময় আর পাঁচটা ছাত্রী ঘুমতে যেতেন, সে সময় কঠিন ওয়ার্কআউটে ব্যস্ত থাকতেন ভারতের নতুন বিশ্ব সুন্দরী। একটা বছর ঠিকমতো পড়াশোনাটাও করে উঠতে পারেননি সে জন্য।

এ সব কিছু অবশ্য বৃথা যায়নি। বিজয়িনীর শেষ হাসিটা হেসেছেন তিনিই। ২০১৭ সালের ২৫ জুন হরিয়ানার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করে জিতে নিয়েছিলেন ‘মিস ইন্ডিয়ার’ খেতাব। এবার বিশ্ব সুন্দরী ২০১৭ সালের মুকুট জিতে নিয়ে দীর্ঘ ১৭ বছরের খরা কাটালেন মানুষী।