স্বাস্থ্য প্রতিদিন Archives | ইবিডি নিউজ
শনিবার, ডিসেম্বর ১৫পরীক্ষা মূলক

স্বাস্থ্য প্রতিদিন

সুস্থ থাকতে দৈনিক অন্তত ৮ গ্লাস পানি

সুস্থ থাকতে দৈনিক অন্তত ৮ গ্লাস পানি

নিউজ ডেস্ক
পানিই জীবন ৷ এমনটাই অধিকাংশ সময় বলা হয়ে থাকে ৷ যে কোনও রোগ থেকে মুক্তি পেতে পানির কোনও বিকল্প নেই ৷ এমনকী ৭০ রকমের ব্যাথা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে থাকে পানি ৷ শরীর সুস্থ রাখতে পানি খাওয়া অত্যন্ত জরুরি ৷ কিন্তু আমরা অনেকেই পর্যাপ্ত পরিমানে পানি পান করি না ৷ চিকিৎসেকরা বলেন, শরীর সুস্থ রাখার জন্য প্রত্যেকদিন খুব কম করে ৮ গ্লাস পানি পান করা খুবই প্রয়োজন। মাথার যন্ত্রণা, অম্বল, শরীরের ব্যথা এবং ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে থাকে পানি ৷ যে সমস্ত রোগগুলি মেটাতে পানি অত্যন্ত উপকারি, সেগুলি হলো- ১. মাইগ্রেন ২. উচ্চ রক্তচাপ ৩. নিম্ন রক্তচাপ ৪. গাঁটে ব্যাথা ৫. হঠাৎ হৃৎপিণ্ডের স্পন্দন বেড়ে বা কমে যাওয়া ৬. এপিলেপ্সি ৭. কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়া ৮. কাশি ৯. শরীরে অস্বস্তি ১০. শ্বাসকষ্ট ১১. হুপিং কাশি ১২. শিরায় ব্লকেজ ১৩. ইউটেরাস ও ইউরিন সংক্রান্ত রোগ ১৪. খিদে কমে যাওয়া ১৫. প
এই শীতে যত্ন নিন শিশুর ত্বকের

এই শীতে যত্ন নিন শিশুর ত্বকের

নিউজ ডেস্ক
বড়দের তুলনায় শিশুদের ত্বক খুব নাজুক ও স্পর্শকাতর হয়ে থাকে। যার কারণে শীতের আর্দ্র আবহাওয়াতে শিশুর ত্বক শুষ্ক ও নিষ্প্রাণ হয়ে পড়ে। শুষ্ক চামড়া বাচ্চাদের বিভিন্ন সমস্যার জন্ম দেয়। তাই শীতের এই সময়টাতে শিশুর ত্বকের যত্নের ব্যাপারে হতে হবে সতর্ক ও মনোযোগী- গোসল শিশুর শরীরের তেল ও ময়লা ধুয়ে ফেলতে গোসল করানো জরুরী। গোসল করানোর সময় সুগন্ধিবিহীন বাচ্চাদের সাবান ব্যবহার করুন। খেয়াল রাখবেন শীতে যেন বাচ্চাদের শরীরে বড়দের সাবান লাগানো না হয়। গোসলের জন্য কুসুম গরম পানি ব্যবহার করুন। শিশুর গোসলের জন্য ১০ মিনিটের বেশি সময় নিবেন না। গোসল শেষে দ্রুত শরীর ও মাথা ভালোভাবে মুছে ফেলতে হবে। ময়েশ্চারাইজ শীতে আপনার বাচ্চার ত্বকের যত্নে সব থেকে যেটি বেশি জরুরী সেটা হল ময়েশ্চারাইজার। শিশুকে গোসল করানোর পর কোমল কোন টাওয়েল দিয়ে শরীর মুছিয়ে তারপর মশ্চারাইজার লাগান। তবে এটি লাগানোর আগে নিশ্চিত হোন সেটি যাতে সুগন্
এই গরমে সুস্থ থাকতে কিছু টিপস

এই গরমে সুস্থ থাকতে কিছু টিপস

নিজস্ব প্রতিবেদক
সুস্থ থাকুন তীব্র গরমেও তার জন্য কিছু পরামর্শ। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে প্রকৃতির উত্তাপ। দিনের শুরুতেই সদ্য ওঠা সূর্যটা যেন তীব্র তেজে ফেটে পড়ে পৃথিবীর বুকে। রোজ সন্ধ্যায় সূর্যের বিদায় হলেও রেখে যায় গরমের ঝাপটা। তাই সারা রাতেও নিস্তার মেলে না। এমন সময় বিদ্যুতের অবস্থা এতোটাই শোচনীয় যে, গরম কমাতে তার ওপরও ভরসা করা চলে না। নিজের কাজ করতে সারাদিন ঘরেও বসে থাকা চলে না, বাইরে বের হতেই হয়। তাই তীব্র গরমে আমাদেরকে সুস্থ থাকতে কিছু ব্যবস্থা অবশ্যই নিতে হয়। বাইরে বের হওয়ার সময় সঙ্গে অবশ্যই একটা ছাতা রাখতে হবে। শুধু রাখলেই হবে না, রাস্তায় বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছাতা মেলে মাথায় ধরতে হবে। গরমের দিনে পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যই ঢিলেঢালা, হালকা রঙের এবং পাতলা বেছে নিতে হবে। ঢিলেঢালা পোশাক শরীরের অস্বস্তি কমায়। হালকা রং কম গরম ধরে রাখে এবং পাতলা কাপড়ে শরীরের ভেতর বাতাস ঢুকতে সাহা
গরমে রাস্তার শরবত অসুখের মূল কারণ হতে পারে

গরমে রাস্তার শরবত অসুখের মূল কারণ হতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজধানীসহ সারাদেশে চলছে গ্রীষ্মের দাবদাহ। তীব্র তাপপ্রবাহে কর্মজীবীদের স্বস্তি নেই। চলার পথে রাস্তাঘাটে হাঁপিয়ে ওঠা নগরবাসী গলা ভেজাতে পান করছেন বরফ মিশ্রিত বিভিন্ন শরবত । সাময়িক স্বস্তি মিললেও ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত রোগের মূল কারণ এ শরবত । বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, ডায়রিয়ার মতো পানিবাহিত রোগের অন্যতম কারণ জীবানুযুক্ত পানি। বিশেষ করে বরফ মিশ্রিত শরবত এ জন্য বিশেষ দায়ী। স্বস্তি পেতে কর্মজীবী মানুষ নিজেই ডেকে আনছেন বিভিন্ন রোগ। পানি ও বরফ কোথাকার, কী উপায়ে এসব তৈরি হচ্ছে, শরবত তৈরির পরিবেশ কেমন- কোনো কিছুতে কারও ভ্রুক্ষেপ নেই। ফলে এসব পানীয় পানে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছেন নগরবাসী। তীব্র গরমে পিপাসিত মানুষের প্রাণ খোঁজে একটু প্রশান্তির। এ জন্য ঠান্ডা পানির কোনো বিকল্প নেই। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কের মোড়ে ‘সুস্বাদু’ নানা রকমের ঠান্ডা শরবত বিক্রির ব্যবসা করছেন এক শ্রেণির
চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে ক্র্যাশ কর্মসূচি

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে ক্র্যাশ কর্মসূচি

নিউজ ডেস্ক
ডেঙ্গু জরের মতো চিকুনগুনিয়া রোগে আক্রান্ত হলে অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োজন হয় না। প্যারাসিট্যামল খেলেই সর্বোচ্চ ৭ দিনের মধ্যে এ জ্বর সেরে যায়। বললেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। রোববার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে চিকুনগুনিয়া ও ডেঙ্গু রোগ প্রতিরোধে মশক নিধন ক্র্যাশ কর্মসূচির উদ্বোধন করে তিনি এসব কথা বলেন। সাঈদ খোকন বলেন, চিকুনগুনিয়া একটি নতুন রোগ। যদিও এটি ডেঙ্গুর জীবানুবাহী এডিস মশা থেকে ছড়ায়। তবে এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই। একটু সচেতন হলেই এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। মেয়র বলেন, এ পর্যন্ত সারাদেশে চিকুনগুনিয়া রোগে ১৫০ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তবে কেউ মারা যায়নি। আমরা জনগণকে সচেতন করার চেষ্টা করছি। এটি প্রতিরোধে সবার সচেতনতায় প্রয়োজন। খোকন আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে চিকুনগুনিয়া নিয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের
কোমল পানীয় থেকে সাবধান

কোমল পানীয় থেকে সাবধান

নিজস্ব প্রতিবেদক
কোমল পানীয় আমাদের খাবারের মেনুর সবচেয়ে নিয়মিত নাম। খাবারের পর কোমল পানীয় না হলে আমাদের প্রায় চলেই না। অনেকেই পানির চেয়ে কোমল পানীয় বেশি পান করেন। এর উপকারের যেমন দিক আছে, আছে ক্ষতিকর দিকও। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে এই ধরনের পানীয় বেশি পান করলে স্মরণশক্তি কমে যেতে পারে। মস্তিষ্কের ক্ষতি হতে পারে। আর প্রতিদিন ডায়েট সোডা গ্রহণ করলে ‘মতিভ্রংশ’ হওয়ার পাশাপাশি স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়তে পারে। ‘আলৎঝাইমার’স অ্যান্ড ডেমেনশা’ জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় জানানো হয়, যারা ঘন ঘন মিষ্টি কোমল পানীয় পান করেন তাদের স্মরণশক্তি কম হওয়ার পাশাপাশি মস্তিষ্কের ঘনত্বও কমতে পারে। আর উল্লেখযোগ্যভাবে ছোট হয়ে যেতে পারে ‘হিপোক্যাম্পাস’- মস্তিষ্কের এই অংশ স্মৃতি ও জ্ঞান আহরণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই গবেষণার সূত্র ধরে পরবর্তী গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ‘ডায়েট সোডা’ পান করেন অন্যদের তুলনায় তাদের অন্তত তিনগুন বেশি স্
ইলিশ মাছের ‘অন্যরকম’ রেসিপি

ইলিশ মাছের ‘অন্যরকম’ রেসিপি

নিউজ ডেস্ক
ভরা বর্ষার পর বাজারে এখন ইলিশ মাছের ছড়াছড়ি। দামও খুব কম। ঠিক এই সময়েই ইলিশ মাছের যে কোনো রেসিপি আপনি বাসায় বানিয়ে নিতে পারেন। আজ দিচ্ছি আনারসের সাথে ইলিশ মাছ রান্নার রেসিপি। সুস্বাদু এই রেসিপি অনুযায়ী ‘আনারসী ইলিশ’ তৈরি করে সবাইকে চমকে দিন। আনারসী ইলিশ তৈরিতে প্রয়োজন পড়বে ৮-১০টি ইলিশ মাছের টুকরো, ঝুরি করে কাটা আনারস ১ কাপ, হলুদ গুঁড়া ও মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ করে। এছাড়া আস্ত কাঁচামরিচ লাগবে ৫-৬টি। লবণ ও পানি পরিমাণ মতো। সবশেষে মিহি করে কাটা পেঁয়াজ এবং হাফ চা চামচ রসুন বাটা। প্রথমে ইলিশ মাছে টুকরোগুলোকে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। এরপর একটি কড়াই বা প্যানে গরম তেলে পেঁয়াজ ও কাঁচামরিচ হালকা করে ভাজুন। এরপর এতে একে একে সব গুঁড়া ও বাটা মসলা দিয়ে দিন। সাথে পরিমাণ মতো লবণ। ভাজা মসলায় ঝুরি করা আনারস দিয়ে ভালো করে কষিয়ে নিন। এর ওপর মাছের টুকরোগুলোকে বিছিয়ে দিন। এরপর ১০ মিনিট ধরে জ্বাল দিয়
চুলের যত্নে নানাভাবে মেহেদি

চুলের যত্নে নানাভাবে মেহেদি

নিউজ ডেস্ক
চুলের যত্নে কত কিছুই তো লাগানো হয়, এর মধ্যে অন্যতম ‘ মেহেদি ’। মেহেদি পাতা বেটে কিংবা মেহেদি গুঁড়া পানিতে গুলিয়ে ব্যবহার করা হয় চুলের যত্নে। চুল ঝলমলে আর সতেজ করতে এমন কি সাদা চুল রাঙাতে মেহেদির বিকল্প নেই। আজকে জেনে নিন চুলের যত্নে পাঁচ উপায়ে মেহেদি ব্যবহার। ১) আমলকি পেস্টের সঙ্গে মেহেদি পেস্ট মিশিয়ে চুলে লাগালে চুলের বৃদ্ধি তড়ান্বিত হবে। ২) মাথার ত্বক ও চুল খুব বেশি শুষ্ক হলে ম্যায়োনেজ কিংবা ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে মেহেদি মিশিয়ে ব্যবহার করলে শুষ্কতা কমে যাবে। ৩) খুশকি দূর করতে মেথি পেস্টের সঙ্গে মেহেদি ব্যবহার করুন। ৪) চুলের গোড়া শক্ত করতে মেহেদির সঙ্গে সরিষার তেলের মিশ্রণের জুড়ি নেই। ৫) মেহেদির সঙ্গে গ্রিন টি মিশিয়ে ব্যবহার করলে চুল ঝলমলে ও সতেজ হয়।
মানসিক ভাবে সুস্থ থাকার ৩ উপায়

মানসিক ভাবে সুস্থ থাকার ৩ উপায়

ডেস্ক নিউজ
জীবনে কী পেলাম কি পেলাম না এই ভাবনা মাথা থেকে সরিয়ে দিন। আর সুন্দর জীবনের জন্য শুরু করুন শরীরচর্চা। বরাবরই মানুষ ‘পাওয়া’ ও ‘না পাওয়া’র মাঝে, ‘না পাওয়া’কেই বেশি গুরুত্ব দেয়। তাই হতাশা, অবসাদ, মানসিক অশান্তি খুব সহজেই জীবনকে গ্রাস করে। ফলে অনেকেই নানা রকমের নেশা ও অপরাধ কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে যায় বলে সাম্প্রতি স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়। তবে মনের এই তিক্ততা ঝেড়ে সুন্দর জীবনের জন্য মাত্র তিনটি উপায় অবলম্বন করলেই হয়। ধ্যান: প্রাচীনকাল থেকেই মানসিক শান্তির জন্য ধ্যান এবং যোগ ব্যায়াম সবচেয়ে ভালো উপায় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। প্রতিদিন ১০ মিনিট ধ্যানের মাধ্যমে সারাদিনের ক্লান্তি অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব। তাই মানসিক অবসাদ ও দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন খানিকটা সময় বের করে ধ্যান করা যেতে পারে। শরীরচর্চা: ব্যায়াম বাড়তি ওজন কমানোর পাশাপাশি মানসিক অবস্থার উন্নতিতেও সহায়তা করে। শরীরচর
এন্টি অক্সিডেন্ট কি শরীরের জন্য উপকারী?

এন্টি অক্সিডেন্ট কি শরীরের জন্য উপকারী?

নিউজ ডেস্ক
এন্টি-অক্সিডেন্ট বিভিন্ন ধরনের ভিটামিনের সমন্বয়ে গঠিত। আর এই এন্টি-অক্সিডেন্টকে বলা হয় সুপার ফুড। সুপার ফুড সম্পর্কে এতদিন নানা রকম অতিপ্রচার হয়েছে। সুপার ফুড সম্পর্কে বলা হয় নিয়মিত এন্টি-অক্সিডেন্ট সেবন করলে দীর্ঘ জীবন লাভ করা যায়। থাকা যায় সুস্থ ও স্বাস্থ্যবান। বিশেষজ্ঞরা নানা গবেষণায় দেখেছেন এন্টি-অক্সিডেন্টের মানুষের দীর্ঘ জীবন ও সুস্থ জীবন দেয়ার কোনো ক্ষমতা নেই। এটা নেহায়েতই অপপ্রচার ও অতিপ্রচার। আর বলা হয়ে থাকে ডার্ক চকলেট, রেড ওয়াইন হচ্ছে অধিক এন্টি অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ। তবে বিভিন্ন ধরনের  তাজা ফল ও সবুজ শাক-সবজি থেকে প্রাপ্ত এন্টি-অক্সিডেন্ট সম্পর্কে কোনো বিতর্ক নেই। সবুজ শাক-সবজি, রঙিন ফলমূল থেকে পাওয়া এন্টি-অক্সিডেন্ট অবশ্যই শরীরের জন্য হিতকর। তবে ভিটামিন এ, ই, সি-এর সমন্বয়ে তৈরি এন্টি-অক্সিডেন্ট স্বাস্থ্যের জন্য কোনো ম্যাজিক নয়। এটাই এখন বিশেষজ্ঞরা বলছেন এবং বিভিন্ন গবেষণায় এট